Business

ইউটিউব কপিরাইট স্ট্রাইক কি? কিভাবে নিরাপদে থাকা যায়?

ইউটিউব কপিরাইট স্ট্রাইক কি? কিভাবে নিরাপদে থাকা যায় এই বিষয় সর্ম্পকে আজকের এই পোস্ট। সুতরাং আপনারা যারা ইউটিউবিং করেন কিংবা নতুন করে ইউটিউবে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন উভয় ব্যক্তিদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি পোষ্ট। আশা করছি এ ক্ষেত্রে আপনারা সঠিক তত্ত্ব সম্পর্কে জানতে পারবেন এখানে। যারা ইউটিউবার রয়েছেন তাদের জন্য এই পোস্টটি বিশেষ ভূমিকা পালন করবেন নিঃসন্দেহে। বর্তমান সমাজের বিপুল সংখ্যক মানুষ পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন অনলাইন।

অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের কাজ রয়েছে এক এক ব্যক্তি একেক কাজ করে ইনকাম করে থাকেন। যেখানে এক সময় অনলাইনে কাজ করে ইনকাম করা যায় এই বিষয়টি মানুষের কাছে অবিশ্বাস্য ছিল, কিন্তু বিভিন্ন ক্ষেত্রে এর প্রমাণ পেয়ে মানুষ অনলাইন পেশাকে বিশ্বাস করতে শুরু করেছেন। এক্ষেত্রে অনেক ব্যক্তি এই কাজগুলো সম্পর্কে জানতে আগ্রহী। তাই তারা জানতে চেষ্টা করছে বিভিন্ন কাজ সম্পর্কে যেগুলো অনলাইনের মাধ্যমে করা যায়। এ ক্ষেত্রে অনেকেই নির্ধারণ করেছে ইউটিউবে কাজ করে অর্থাৎ নিজেকে একজন ইউটিউবার হিসেবে গড়ে তুলতে আগ্রহী।

আর একজন ইউটিউবার হওয়ার জন্য প্রথমেই এই বিষয়ে সাধারণ জ্ঞান গুলো অর্জন করা জরুরি। অর্থাৎ এখানে কিভাবে কাজ করতে হবে কাজ করার জন্য যে নিয়মগুলো রয়েছে এই নিয়মগুলো জানার প্রয়োজনীয়তা ব্যাপক। এছাড়াও এখানে কাজ করতে গিয়ে যে বিষয়গুলোর প্রতি বিশেষ সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে সেগুলো জানার প্রয়োজন রয়েছে তেমনি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে ইউটিউব কপিরাইট স্ট্রাইক। একজন ইউটিউবার দের জন্য এটি কতটা ক্ষতিকর যারা ইতিমধ্যে ইউটিউবে করেছেন তারাই ভালো জানেন। অর্থাৎ যারা নতুন কাজ করছেন তাদের জন্য এটি জানার ব্যাপক প্রয়োজনীয়তা রয়েছে আশা করব আপনারা এই বিষয়ে সকল তথ্য পড়ে সাবধান থাকার চেষ্টা করবেন।

ইউটিউব কপিরাইট স্ট্রাইক কি?

আপনি কি জানেন ইউটিউব কপিরাইট স্ট্রাইক কি ? না জেনে থাকলে এখান থেকে জেনে নিতে পারেন। ছোট কিংবা অনেক বড় চ্যালেঞ্জ হোক না কেন সকলেই এই সমস্যার সম্মুখীন হতে পারে। তাই সকল ইউটিউবার ভাইদের উদ্দেশ্যে এই পোস্টটি। এটি মূলত ইউটিউব এর একটি আইনি বিষয়। ইউটিউব পরিচালনার জন্য বিভিন্ন ধরনের আইন নির্ধারণ করেছে সেগুলো নামেনি থাকলে কিংবা উপযুক্ত কারণ পেলে যে কোন চ্যানেলে কপিরাইট স্ট্রাইক দেওয়ার ক্ষমতা রাখেন ইউটিউব কর্তৃপক্ষ। এছাড়াও বিভিন্ন বিষয়ের উপর ভিত্তি করে কপিরাইট স্ট্রাইক আসতে পারেন ইউটিউব চ্যানেলে। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি কারণ হচ্ছে ইউটিউব এর নিয়ম ভঙ্গ করে অন্যকারো ভিডিও বা কনটেন্ট কিংবা অনুপযুক্ত কিছু শেয়ার করা।

কপিরাইট স্ট্রাইক থেকে কিভাবে নিরাপদে থাকা যায় ?

যেহেতু একজন ইউটিউবারের জন্য কিংবা ইউটিউব চ্যানেলের জন্য এটি মারাত্মক ক্ষতিসাধন করে। তাই সকলেই এই বিষয় থেকে নিরাপদ থাকতে চেষ্টা করে থাকেন। এর জন্য আপনাকে জানতে হবে কিভাবে রেডি থাকে নিরাপদে থাকা যায়। এর কারণ হচ্ছে কপিরাইট স্ট্রাইক এর কারণে চ্যানেল ভিডিও রেংকিং ফ্যাক্টরে বড় ধরনের প্রভাব ফেলেন। যার মাধ্যমে ভিডিও ভিউ কমতে শুরু করে। তাই সকলের এই বিষয়টির ওপর বিশেষ গুরুত্ব রাখা দরকার। এক্ষেত্রে আমরা কপিরাইট স্ট্রাইক থেকে বাঁচার কিছু পথ নির্বাচন করেছি যেগুলো আপনারা অনুসরণ করলে অবশ্যই কপিরাইট স্ট্রাইক থেকে নিরাপদে থাকতে পারবেন।

প্রতিবার ইউটিউব চ্যানেলে কনটেন্ট আপলোড এর আগে কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম মনে চললে কপিরাইট স্ট্রাইক থেকে নিরাপদে থাকা যায়।

  • ভিডিও তৈরির সময় অরিজিনাল বা কপিরাইট ফ্রি ম্যাটেরিয়াল ব্যবহার করুন।
  • একান্তই অন্য কোনো কপিরাইট কনটেন্ট ব্যবহার করতে হলে কপিরাইট হোল্ডারের সাথে যোগাযোগ করে বিষয়টি আগেই সুরাহা করে নিন।
  • যদিওবা ফেয়ার ইউজ এর ব্যবহার করে বিভিন্ন ক্রিয়েটরের কনটেন্ট ব্যবহার করা যায়, তবুও এটা ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় অন্যের কপিরাইট কনটেন্ট আপনার ভিডিওতে ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।
  • কোনো ভিডিওতে কপিরাইট ক্লেইম আসলে এই ক্লেইম স্ট্রাইকে পরিণত হওয়ার আগে কপিরাইট ম্যাটেরিয়াল সরিয়ে নিন।

Related Articles

Back to top button